Friday, October 7, 2022
Homeলাইফ স্টাইলBenefits of tamarind তেতুঁলের উপকারিতা

Benefits of tamarind তেতুঁলের উপকারিতা

Benefits of tamarind তেতুঁল খাওয়ার উপকার জানুন

নীলিমা সারগোধা, ইন্ডিয়া নিউজ বাংলা : তেতুঁলের টক এবং মিষ্টি স্বাদ যেকোনো খাবারে স্বাদ যোগ করতে পারে সাহায্য করে। এটি চাটনি আকারে, ফুচকার জল তৈরি করতে, খাবারে টক স্বাদ আনতে ব্যবহার করা হয়। তেঁতলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যায়।ভিটামিন সি এর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও, তেঁতুলে ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামও রয়েছে, যা আমাদের হাড়ের সুস্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য বলে বিবেচিত হয়। তেঁতুলে রয়েছে ভিটামিন এ এবং আয়রন ,ফাইবার।

Benifits of tarmarind জেনে নিন তেতুঁল খাওয়ার উপকারিতা কি

ওজন কমাতে সহায়ক
ওজন কমাতে তেঁতুলের বীজ ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যায়।তেঁতুলের বীজে ট্রিপসিন ইনহিবিটর বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়। তেঁতুলের বীজে পাওয়া এই বিশেষ গুণে মেটাবলিক সিনড্রোম কাটিয়ে ওঠার ক্ষমতা রয়েছে।তেঁতুল বীজ ছাড়াও, তেঁতুলের নির্যাস স্থূলতা কমাতে সহায়ক বলে মনে করা হয়।

4026c4 splendid table thinkstockphotos med321019 1

হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে

তেঁতুলে পাওয়া যায় এমন কিছু পুষ্টি উপাদান যা হজমে সহায়তা করে পাচক রস তৈরি করতে পারে।এর ফলে পরিপাকতন্ত্র আগের থেকে ভালোভাবে কাজ করতে পারে। তেঁতুলের ঔষধি গুণ হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সহায়ক।

হার্টের জন্য

হার্টের জন্যও তেঁতুল উপকারি।তেঁতুলের শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ক্ষতিকর প্রভাব থেকে  হার্টকে রক্ষা করতে পারে। তেঁতুলের নির্যাস ধমনীর দেয়ালে চর্বি জমতে বাধা দেয়।তেঁতুলের হাইপোকোলেস্টেরোলিক প্রভাব কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করতে পারে।কোলেস্টেরলকে হৃদরোগের ঝুঁকির কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ডায়াবেটিসের জন্য

তেঁতুলের বীজের নির্যাসে উচ্চ মাত্রার পলিফেনল এবং ফ্ল্যাভোনয়েড রয়েছে। তেঁতুলের বীজের নির্যাসটিতে অ্যান্টি-ডায়াবেটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে। তাই ডায়াবেটিসে তেঁতুলের উপকারিতা অনেক।

tamarind benefits

স্নায়ুতন্ত্রের জন্য

তেঁতুলের ঔষধিগুণ স্নায়ুতন্ত্রের উন্নতি ঘটিয়ে হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে পারে। তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। ক্যালসিয়াম কিছু পরিমাণে স্নায়ুতন্ত্রের কার্যকারিতা উন্নত করতে সাহায্য করে। তেঁতুল ব্যবহার কিছু পরিমাণে দুর্বল স্নায়ুর কার্যকারিতা উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় তেঁতুল

ভিটামিন-সি কিছু পরিমাণে তেঁতুলে পাওয়া যায়, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কার্যকরী। তেঁতুলের বীজে রয়েছে পলিস্যাকারাইড উপাদান, যা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে।

জন্ডিস এবং লিভারের স্বাস্থ্য উপকারিতা

তেঁতুলের হেপাটোপ্রোটেক্টিভ প্রভাব পাওয়া যায়, তাই তেঁতুলকে লিভারের জন্য একটি কার্যকর খাদ্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়। তেঁতুল পাতায় হেপাটোপ্রোটেকটিভ বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ক্ষতিকারক পদার্থ থেকে লিভারকে রক্ষা করতে পারে। এর পাতা থেকে তৈরি একটি ক্বাথ জন্ডিস এবং হেপাটাইটিসের জন্য দরকারী মনে করা হয়।

What Is Tamarind 732x549 thumbnail 1 732x549 1

প্রদাহ প্রতিরোধ

দীর্ঘস্থায়ী প্রদাহ অনেক রোগের কারণ হতে পারে, যা এড়াতে তেঁতুল একটি ঐতিহ্যগত ওষুধ হিসাবে ব্যবহার করা হয়। তেঁতুলের সজ্জা, পাতা, বীজ, কাণ্ডের ছাল এবং মূলের নির্যাসে প্রদাহ বিরোধী এবং ব্যথা উপশমকারী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তেঁতুলে উপস্থিত অ্যালকালয়েড, ফ্ল্যাভোনয়েড, ট্যানিন, ফেনোলস, স্যাপোনিন এবং স্টেরয়েডের মতো যৌগগুলি প্রদাহ-বিরোধী প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে। এই বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে, তেঁতুলের ব্যবহার শরীরে বাতের উপসর্গ এবং ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

ম্যালেরিয়া রোগ প্রতিরোধে

ম্যালেরিয়া প্রতিরোধে তেঁতুল খাওয়া উপকারি।ফ্যালসিপেরাম নামক একটি পরজীবীর বিরুদ্ধে লড়াই করে তেঁতুল। ফ্যালসিপেরাম ম্যালেরিয়া সৃষ্টি করে।

উচ্চ রক্তচাপের জন্য

রক্তচাপ ঠিক রাখার জন্য কোলেস্টেরল প্রোফাইল সঠিক হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। তেঁতুলে এমন পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়, যা কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে পারে। উচ্চ কোলেস্টেরল উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। উচ্চ রক্তচাপের ক্ষেত্রে তেঁতুলের ব্যবহার সহায়ক বলে প্রমাণিত।

Benefits of Tamarind.jpg 1.webp

পেটে ব্যথা এবং কোষ্ঠকাঠিন্য উপশম

তেঁতুল কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি দিতে পারে। এছাড়াও, এটি পেটের ব্যথা উপশমেও কার্যকর হতে পারে। বিশেষ করে, থাই তেঁতুলের পাল্পের নির্যাস কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। তেঁতুলের এই প্রজাতি তার রেচক বৈশিষ্ট্যের জন্য বিশ্ব বিখ্যাত।

ত্বক এক্সফোলিয়েট করতে

তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতার মধ্যে রয়েছে ত্বকের মরা চামড়া দূর করা এবং তা উন্নত করা। তেঁতুলের সজ্জার নির্যাসে আলফা হাইড্রোক্সিল অ্যাসিড থাকে, যা ত্বকের মৃত কোষগুলিকে এক্সফোলিয়েট করতে পারে, ত্বককে উজ্জ্বল এবং এক্সফোলিয়েটেড দেখায়।তেঁতুলের সজ্জার নির্যাসে রয়েছে টারটারিক অ্যাসিড, ল্যাকটিক অ্যাসিড, সাইট্রিক অ্যাসিড, ম্যালিক অ্যাসিড, পেকটিন এবং ইনভার্টেড চিনি, যা ময়শ্চারাইজিং প্রভাব দেখিয়ে ত্বকের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে পারে।

সানবার্ন প্রতিরোধে সহায়ক

রোদে তেঁতুল খুব উপকারী। জাইলোগ্লুকান তেঁতুলে পাওয়া যায়, যা সানস্ক্রিন লোশন তৈরি করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। তেঁতুলে থাকা জাইলোগ্লুকান ত্বকের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে কার্যকর হতে পারে।

image

ব্যাকটেরিয়া বিরোধী
তেঁতুল ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে কাজ করতে পারে, যা অন্ত্রের বিপর্যয়, খাদ্যজনিত রোগ এবং যৌন সংক্রমণ ঘটায়। তেঁতুলের ছাল এবং সজ্জা থেকে নির্যাস ব্যাসিলাস সাবটিলিস এবং সিউডোমোনাস অ্যারুগিনোসার মতো রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধিকে বাধা দিতে পারে।

প্রাকৃতিক বার্ধক্য বিরোধী বৈশিষ্ট্য

প্রখর সূর্যালোক শুধু ত্বককে ঝলসে দিতে পারে না, সূর্য থেকে আসা অতিবেগুনি রশ্মিও ত্বককে অকালে পরিণত করতে পারে, যাকে ফটোএজিং বলা হয়। তেঁতুলের বীজের খোসার নির্যাসে বেশ কিছু প্রাকৃতিক পুষ্টি রয়েছে। যেটি ত্বককে মসৃণ করে।

RELATED ARTICLES
Html code here! Replace this with any non empty raw html code and that's it

Most Popular