Monday, September 26, 2022
Homeলাইফ স্টাইলBenifits of peanuts butter পিনাট বাটারের উপকারিতা

Benifits of peanuts butter পিনাট বাটারের উপকারিতা

Benefits of peanuts butter স্বাস্থ্যগুণ সমৃদ্ধ পিনাট বাটার

নীলিমা সারগোধা, ইন্ডিয়া নিউজ বাংলা : বাচ্চা থেকে বড়, সকলের পছন্দ পিনাট বাটার। আর বাসবে নাই বা কেন, বাদামের সঙ্গে ক্রিমের টেস্ট, সবমিলিয়ে পিনাট বাটার আমাদের সকলের খুব পছন্দের। পিনাট বাটার যে শুধুমাত্র সুস্বাদু তাই নয়, এর অনেক উপকারী গুণাগুণও রয়েছে।

সাধারণত রুটি-মাখন বা জ্যাম-রুটি দিয়েই আমরা সকালের জলখাবারটা সারি৷ কিন্তু জানেন কি নিয়মিত মাখনের বদলে যদি পিনাট বাটার খাওয়ার অভ্যাস করতে পারেন, তাহলে আপনার হজম ক্ষমতা তো বাড়বেই, উপরন্তু কোলেস্টরেল নিয়ন্ত্রণে থাকবে, হৃদপিণ্ড আরও অনেক বেশি কার্যকরী হয়ে উঠবে৷ এমনকী পিনাট বাটার ওজন নিয়ন্ত্রণেও সহায়তা করে৷

পিনাট বাটার শুধু যে রুটি বা মাখনের সঙ্গে খেতে হবে তার কোনও মানে নেই৷ ফ্রুট স্যালাড বা ডেজার্টেও পিনাট বাটার একটা গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ হতে পারে৷ বাচ্চাদের টিফিনে ফল দিলে তার সঙ্গে পিনাট বাটার মিশিয়ে দিন৷ পিনাট বাটারে যে পরিমাণ ফ্যাট থাকে তার ৮০ শতাংশই আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট৷ আর পিনাট বাটারে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও প্রোটিন৷ সুতরাং অনেকক্ষণ পেট ভর্তি থাকে৷ তাই যখন তখন ক্ষিধেও পায় না৷

Screenshot 20220103 212645

Benifits of peanuts butter পিনাট বাটার গ্রহণের উপকারিতা

হার্ট সুস্থ রাখতে
হার্টকে সুস্থ রাখার কথা বললে, পিনাট বাটার এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো, কারণ এতে রয়েছে মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট, যা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। শরীরে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমে গেলে হৃদরোগ এড়ানো সহজ হয়ে যায়।

প্রোটিন হিসাবে

শরীরকে সুস্থ রাখতে অন্যান্য পুষ্টির পাশাপাশি প্রোটিনের পরিমাণও প্রয়োজন। চিনাবাদাম প্রোটিনের উচ্চ উৎসগুলির মধ্যে অন্যতম। তাই প্রোটিনের ঘাটতি মেটাতে পিনাট বাটার খাওয়া যেতে পারে।

sweet organic natural creamy peanut butter royalty free image 1620837615.

ওজন কমাতে
মাখন সেবন পেট বড় হওয়া রোধে সহায়ক হতে পারে। আসলে, কম চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়ার মাধ্যমে স্থূলতা বৃদ্ধি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়াও, কনজুগেটেড লিনোলিক অ্যাসিডযুক্ত খাবার খাওয়া অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি রোধ করতে পারে।

ডায়াবেটিসে সাহায্য করে
পিনাট বাটার খাওয়া আপনাকে ডায়াবেটিসের সমস্যা থেকে বাঁচাতে পারে। আসলে চিনাবাদামকে ডায়াবেটিসের সুপার ফুডের তালিকায় রাখা হয়। কারণ এটি ম্যাগনেসিয়াম এবং ফাইবারের মতো পুষ্টিতে সমৃদ্ধ এবং রক্তে শর্করাকে খুব বেশি প্রভাবিত করে না। এছাড়াও পিনাট বাটার লো ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী বিকল্প হতে পারে।

শক্তি
মানবদেহের সমস্ত অঙ্গ সক্রিয়ভাবে কাজ করার জন্য প্রয়োজন পর্যাপ্ত শক্তির।  পিনাট বাটার শক্তির একটি প্রধান উৎস। পিনাট বাটারে প্রচুর এনার্জি পাওয়া যায় এবং পিনাট বাটার এনার্জি পূর্ণ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

photo 1615110250484 e8c3b151b957

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক
দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার কারণে শরীরে সংক্রমণ এবং অন্যান্য অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে। ভিটামিন-এ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে সহায়ক। ভিটামিন-এ পাওয়া যায় এমন খাদ্যাভ্যাসের মধ্যে মাখনকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়, তাই মাখনকে ইমিউন সিস্টেমের জন্য উপকারী বলা হয়।
চোখের জন্য
চোখ সুস্থ রাখতেও পিনাট বাটার ব্যবহার করা যেতে পারে। ভিটামিন ই চোখের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি হিসাবে বিবেচিত হয়, যা ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের মতো সমস্যা প্রতিরোধে কাজ করতে পারে। চিনাবাদাম মাখন চোখের জন্য ভিটামিন ই সরবরাহের জন্য একটি কার্যকর বিকল্প।

ক্যান্সার
ক্যান্সারের মতো মারণ সমস্যা দূরে রাখতে পারে মাখনের উপকারিতা। চিনাবাদামে রয়েছে আইসোফ্ল্যাভোন, ফাইটোস্টেরল, রেসভেরাট্রল এবং ফেনোলিক অ্যাসিড, যা অ্যান্টি-ক্যান্সার হিসেবে কাজ করে। চিনাবাদাম থেকে রান্না করে পিনাট বাটার তৈরি করা হয়। ক্যান্সারের সমস্যাকে দূরে রাখার পাশাপাশি এর উপসর্গ দূর করতেও এটি কাজ করতে পারে। তাই বলা যায় পিনাট বাটার ক্যানসার বিরোধী হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

 

 

RELATED ARTICLES
Html code here! Replace this with any non empty raw html code and that's it

Most Popular