Friday, September 30, 2022
HomeবিদেশImran Khan Letter Controversy : গদি বাঁচাতে মরিয়া ইমরান খানের মার্কিন চিঠি...

Imran Khan Letter Controversy : গদি বাঁচাতে মরিয়া ইমরান খানের মার্কিন চিঠি নাটক

ইন্ডিয়া নিউজ বাংলা

Imran Khan Letter Controversy

ইসলামাবাদ :পাকিস্তানে চলমান রাজনৈতিক নাটকীয়তার মধ্যে একটি চিঠিই সবচেয়ে বেশি আলোচিত হচ্ছে। দাবি করা হচ্ছে, মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর অর্থাৎ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে। ইমরান দাবি করেছেন যে বিডেন প্রশাসন তাকে প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারে দেখতে চায় না এবং আমেরিকার নির্দেশে তার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনা হয়েছিল।

পাকিস্তানি গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির বৈঠকে এই চিঠিটি রাখা হয়েছে। কয়েকজন সাংবাদিকও তা দেখেছেন। তবে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন ছিল, মন্ত্রিসভার বৈঠকে বা সংসদে তা উপস্থাপন করা হয়নি কেন? এই প্রশ্নটি বর্তমান কারণ সংসদ বা মন্ত্রিসভাই একমাত্র প্ল্যাটফর্ম যেখান থেকে সারা বিশ্বে বার্তা পাঠানো যেত, আমেরিকাকে জবাব দিতে বাধ্য করা যেতে পারে। তাই, এখানে আমরা এই প্রশ্নগুলোর উত্তর খোঁজার চেষ্টা করি।

letter

কি আছে এই চিঠিতে
ইমরান যে কাগজটি দেখাচ্ছেন সেটি আসলেই আছে কি না তা জানা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। পাকিস্তানের সিনিয়র সাংবাদিক রিজওয়ান রাজি বলেছেন – এই কাগজটি ব্লফ, একটি মিথ্যা এবং এটি ছাড়া আর কিছুই নয়। আসাদ মাজিদ কয়েক মাস আগে পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ছিলেন। তার সম্পর্কে জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে তিনি ইমরান খানের দল তেহরিক-ই-ইনসাফের সদস্য এবং ইমরানের বিশেষ বন্ধু।

ইমরান মাজিদকে একটি মিশনের দায়িত্ব দেন যে কোনোভাবে জো বাইডেন ইমরানকে ফোন করবেন। এটা ঘটতে পারেনি। এরপর খান মাজিদকে ইমরান সরকার এবং পাকিস্তান সম্পর্কে বিডেন প্রশাসন কী ভাবছে তা বলতে বলেন। জবাবে, মাজিদ একটি অতিরঞ্জিত অভ্যন্তরীণ মেমো লিখেছেন। এতে বলা হয়েছে, হোয়াইট হাউস মনে করে ইমরান সরকারের অধীনে পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি হবে না।

160148 pakistan parliament

তাই এটি একটি চিঠি বা অন্য কিছু
পাকিস্তানি-আমেরিকান আইনজীবী এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক সাজিদ তারাদের মতে, প্রথম জিনিসটি হল এটি অফিসিয়াল যোগাযোগ নয়। এটি তার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন রাষ্ট্রদূতের লেখা একটি অভ্যন্তরীণ মেমো, যার কোনো আইনি বা কূটনৈতিক মর্যাদা নেই।

পাকিস্তানের সিনিয়র সাংবাদিক হামিদ মীর বলেছেন- আসাদ মজিদ নভেম্বরেই অবসরে গিয়েছিলেন। তাহলে কীভাবে তারা ৭ বা ৮ মার্চ অভ্যন্তরীণ মেমো পাঠাতে পারে। আমেরিকা যদি ইমরানের সরকারকে পতনের ষড়যন্ত্র করে তাহলে তাকে ওআইসি সম্মেলনে অতিথি হিসেবে আমন্ত্রণ জানালেন কেন? এই মিথ্যাচারে মানুষ প্রতারিত হতে পারে, কিন্তু এর জন্য দেশকে কত খেসারত দিতে হবে তা জানেন না ইমরান। কূটনীতিতে প্রতিটি শব্দের অনেক অর্থ আছে, কিন্তু খান সাহেব বোধহয় এটাকেও ক্রিকেট ভাবছেন।

Imran Khan Letter Controversy

আর ও পড়ুন India-Australia Economic Cooperation and Trade Agreement মোদি-মরিসনের ভার্চুয়াল উপস্থিতিতে ভারত-অস্ট্রেলিয়া অর্থনৈতিক সহযোগিতা এবং বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদিত

Publish by Monirul Hossain

RELATED ARTICLES
Html code here! Replace this with any non empty raw html code and that's it

Most Popular