Friday, September 30, 2022
HomeGANGASAGARCorona Wave: Mayor and Chief secretary meet উদ্বিগ্ন মেয়র বৈঠক করলেন মুখ্য...

Corona Wave: Mayor and Chief secretary meet উদ্বিগ্ন মেয়র বৈঠক করলেন মুখ্য সচিবের সঙ্গে

Corona Wave: Mayor and Chief secretary meet উদ্বিগ্ন মেয়র বৈঠক করলেন মুখ্য সচিবের সঙ্গে

 কৌশিক দাস ইন্ডিয়া নিউজ বাংলা, কলকাতা: ক্রমশ বেড়ে চলা করোনার সংক্রমণ নিয়ে উদ্বিগ্ন শহরের মেয়র ফিরহাদ হাকিম। আজ বিকেলে এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেন রাজ্যের মুখ্যসচিব হরি কৃষ্ণ দ্বিবেদীর সঙ্গে। এই ঘোরতর জটিল পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্য সচিবের সঙ্গে পৌরনিগম থেকে ভার্চুয়াল মিটিং করলেন  মেয়র ববি হাকিম।

উচ্চ পর্যায়ের এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সমস্ত মেয়র পরিষদেরা

উচ্চ পর্যায়ের এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সমস্ত মেয়র পরিষদেরা। নজিরবিহীনভাবে গত ২৪ ঘন্টায় কলকাতা কর্পোরেশনের অধীনস্থ এলাকাগুলিতে করোনা সংক্রমনে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। সিংহভাগ এলাকা কনটেইনমেন্ট জোনে পরিণত করা হয়েছে। রয়েছে মাইক্রো কনটেইনমেন্ট জোন।

২৪ ঘন্টায় কলকাতা কর্পোরেশনের অধীনস্থ এলাকাগুলিতে করোনা সংক্রমনে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে।

কলকাতা কর্পোরেশনের স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলো থেকে যাতে আপৎকালীন পরিষেবা দেওয়া যায় করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের, সে বিষয়েও বৈঠক হয় আজ। রাজ্যের মুখ্য সচিবের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণের বৈঠকে অক্সিজেন সিলিন্ডার সহ সরকারি হাসপাতালে পর্যাপ্ত শয্যার বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়। কলকাতা কর্পোরেশন সরকারকে সব রকমের সহযোগিতা করবে বলে জানিয়েছেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

কলকাতার বাসিন্দাদের জন্য একগুচ্ছ অনুরোধ, আর্জি করেছেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম। সবসময় মাস্ক পরে বাইরে বের হওয়া, এমনকী কেন্দ্রের কাছে সকলের জন্য বুস্টার ডোজ চালু করার আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার কলকাতায় পজিটিভিটি রেট ছিল ৩৭.৫৪%।

মাত্র ১ জানুয়ারি থেকে ৬ জানুয়ারির মধ্যে কলকাতার কোভিড সংক্রমণ ২০০০ থেকে ৬০০০-এ পৌঁছেছে

মারাত্মক আকার ধারন করছে কলকাতার করোনা পরিস্থিতি। বুধবার কলকাতায় পজিটিভিটি রেট ছিল ৩৭.৫৪%। মাত্র ১ জানুয়ারি থেকে ৬ জানুয়ারির মধ্যে কলকাতার কোভিড সংক্রমণ ২০০০ থেকে ৬০০০-এ পৌঁছেছে। স্বাস্থ্য ক্ষেত্র তো বটেই, কলকাতা পুলিশ এমনকী কলকাতা পুরসভার বহু অফিসার, কর্মী করোনা আক্রান্ত।

যাদের উপসর্গ দেখা দিচ্ছে, তাঁরাই টেস্ট করাতে যাচ্ছেন। কিন্তু প্রায় ৪০% মানুষ উপসর্গহীন। তাঁরা কিন্তু টেস্ট করাচ্ছেন না।

যাদের উপসর্গ দেখা দিচ্ছে, তাঁরাই টেস্ট করাতে যাচ্ছেন। কিন্তু প্রায় ৪০% মানুষ উপসর্গহীন। তাঁরা কিন্তু টেস্ট করাচ্ছেন না। এই উপসর্গহীনরাই সমস্ত জায়গায় যাচ্ছেন এবং তাঁরাই সুপারস্প্রেডার হিসেবে কাজ করছেন, বলে মনে করেন ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন,  এবার সংক্রমণের হার অত্যন্ত বেশি, কিন্তু হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার হার তেমন বেশি নয়। মানুষ সংক্রামিত হচ্ছেন আবার সুস্থও হয়ে উঠছেন। কলকাতার মানুষ যতটা না স্বাস্থ্য সচেতন, তার থেকে অনেক বেশি আনন্দ করতে ভালোবাসেন। তাঁরা এইসব সমস্যাকে অত গুরুত্ব দেন না। উৎসবের মরসুম শেষ হয়ে গেছে, কিন্তু কলকাতার মানুষকে কারণ ছাড়াই ঘুরে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে।

দুর্গাপুজোতেও প্রচুর মানুষ বাইরে বেরিয়েছিলেন। তাঁদের অধিকাংশ মাস্কও পরেননি। কিন্তু এই পরিস্থিতি হয়নি। আসলে এই তৃতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণের হার অত্যন্ত বেশি। মুহূর্তেই মানুষ সংক্রমিত হয়ে পড়ছে। এই কারণেই এমন পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে।

কলকাতা পৌরনিগম যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন মেয়র। প্রচার, ভ্যাকসিনেশন, স্যানিটাইটেশনের উপর জোর দেওয়া হয়েছে

কলকাতা পৌরনিগম যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন মেয়র। প্রচার, ভ্যাকসিনেশন, স্যানিটাইটেশনের উপর জোর দেওয়া হয়েছে। কলকাতা পৌরনিগম বিভিন্ন জায়গায় কোভিড বিধি নিয়ে হোডিং লাগিয়েছি, বাজারে মাস্ক ছাড়া বেচাকেনা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, অল্পবয়সীদের টিকাকরণের উপর জোর দেওয়া হয়েছে, কেন্দ্রের কাছে আর্জি জানানো হচ্ছে সকলের জন্য বুস্টার ডোজ চালু করতে। বর্তমানে কলকাতায় ৫৮ কনটেইনমেন্ট জোন রয়েছে। প্রতিদিন বিষয়গুলি নিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। 24 ঘন্টা সমগ্র বিষয়ের ওপর নজরদারি চালানো হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

Published by Samyajit Ghosh

RELATED ARTICLES
Html code here! Replace this with any non empty raw html code and that's it

Most Popular